Sunday, December 16, 2018

মেয়েদের সাদাস্রাব বা শ্বেতপ্রদর (Leucorrhoea) - কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকারের উপায়

নারীদের যোনীপথ দিয়ে অতিরিক্ত সাদা স্রাব নির্গত হওয়াকেই শ্বেতপ্রদর বা (Leucorrhoea) লিউকোরিয়া বলা হয়ে থাকে। কিন্তু সব সময়ই এটিকে রোগের পর্যায়ে বিবেচনা করা যাবে না। স্বাভাবিকভাবে প্রত্যেক মেয়েদেরই ডিম্বনালী, জরাযু ও যোনিপথ থেকে সামান্য কিছু সাদা স্রাব নিঃসৃত হতে পারে। অতিরিক্ত সাদাস্রাব মেয়েদের যৌনাঙ্গে ভেজা স্যাত স্যাতে অনুভুতির সৃষ্টি করে যা দৈনন্দিন জীবনের স্বাভাবিক উচ্ছ্বাসকে ব্যাহত করে। লিউকোরিয়া হলে চুলকোনিও থাকতে পারে। কাপড় অনেক সময় বাদামি বর্র্ণের দাগের সৃষ্টি করে। সুন্দর ও স্বাচ্ছন্দ্যভাবে চলাফেরায় ব্যঘাত ঘটায় এবং দৈনন্দিন জীবনে এক বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করে থাকে। বিভিন্ন বয়সে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পরিমান সাদাস্রাব হতে পারে। তার সবগুলিই বড় রোগ নয়। যেগুলো অস্বাভাবিক ও চিকিৎসার প্রয়োজন হয়, সেগুলিকেই শুধু প্রচলিত অর্থে লিউকোরিয়া বা সাদাস্রাব বলা হয়।

সাদাস্রাব বা শ্বেতপ্রদর - কারণ 

  • গণোরিয়া বা প্রমেহ রোগ, গণোরিয়া জীবাণু দ্বারা সার্ভিক্স, ভ্যাজাইনা আক্রান্ত হয়।
  • ট্রাইকোমোনাস ভ্যাজাইনালিস নামের জীবাণু দ্বারা ভ্যাজাইনা আক্রান্ত হওয়া, জননযন্ত্রে নানা জীবাণু দূষণের জন্য এটা হতে পারে।
  • গর্ভস্রাব বা প্রসবের পর জরায়ু দূষিত হওয়া।
  • পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার অভাব ও উপযুক্ত পরিবেশের অভাব এর প্রধান কারন।
  • দেহে বা জরায়ুর কোন অসুস্থতা যথা রক্তহীনতা, যক্ষা, ক্রণিক নেফ্রাইটিস, ক্রণিক প্যাসিভ কনজেশসন প্রভৃতি।
  • ঋতুকালে তলপেটে ঠাণ্ডা লাগানো বা অন্য কোন কারণে জননেন্দ্রিয়ের প্রদাহ।
  • জরায়ু মুখে বা প্রসব পথে ক্যান্সার। গর্মির ঘা, টিউমার বা অন্য কোনো রোগ হওয়া।
  • অজীর্ণ, আমাশয়, পুরাতন ম্যালেরিয়া জ্বর, কালাজ্বর, যক্ষা প্রভৃতি পীড়ায় স্বাস্থ্যভঙ্গ হওয়া।
  • যোনি দ্বারে ক্ষুদ্র কৃমির উপদ্রব।
  • হস্তমৈথুন, অতিরিক্ত রতিক্রিয়া, পুনঃ পুনঃ গর্ভধারণ বা পুনঃ পুনঃ গর্ভস্রাব।

সাদাস্রাব বা শ্বেতপ্রদর - লক্ষণ ও উপসর্গ 

  • জরায়ু থেকে অনিয়মিত ভাবে সাদা স্রাব বা ডিমের শ্বেতাংশের মতো স্রাব বের হতে থাকে।
  • মাঝে মাঝে তার সঙ্গে লালচে স্রাব বা দুই এক ফোঁটা রক্ত বের হয়।
  • ইনফেকশন থাকলে যোনির চুলকানি হয়।
  • প্রস্রাব ঘন ঘন হয় এবং প্রস্রাবে জ্বালা থাকে। মূত্রনালীর প্রদাহ সৃষ্টি হয়।
  • স্রাব সাধারণতঃ ঋতুর পূর্বে বা পরে প্রকাশ পায়।
  • কোমরে বেদনা হয়। তলপেট ভারী হয়, রোগিনী ক্রমে ক্রমে দুর্বল হয়ে পড়ে।
  • ক্ষুধামন্দা, কোষ্ঠকাঠিন্য, অম্ল, হৃদস্পন্দন প্রভৃতি উপসর্গ দেখা দেয়।
  • মাথাধরা ও মাথাব্যথা থাকে।
  • যোনি থেকে নির্গত শ্বেতপ্রদর ঝাঁঝালো বা হাজাকর হয়। যেখানে লাগে সে স্থানটি হেজে যায়।
  • স্রাব অস্বচ্ছ, কটু, যন্ত্রণাদায়ক হয়। যোনি মধ্যে উষ্ণতা এবং সংকোচন বোধ হয়
এই সম্পর্কে প্রতিকারের উপায়সহ (এলোপ্যাথিক ও হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা) বিস্তারিত থাকছে ভিডিওতে......


সাদাস্রাব বা শ্বেতপ্রদর - চিকিৎসা 

মেয়েদের সাদাস্রাব বা শ্বেতপ্রদর স্থায়ী ভাবে নির্মূলের পার্শপ্রতিক্রিয়াহীন এবং স্থায়ী চিকিৎসা মূলত হোমিওপ্যাথি। তবে এর জন্য এক্সপার্ট একজন হোমিও চিকিৎসকের পরামর্শক্রমে চিকিৎসা নেয়া জরুরী। 
মেয়েদের সাদাস্রাব বা শ্বেতপ্রদর (Leucorrhoea) - কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকারের উপায় ডাঃ ইমরান - ডিএইচএমএস, পিডিটি (হোমিও মেডিসিন), ঢাকা 5 of 5
নারীদের যোনীপথ দিয়ে অতিরিক্ত সাদা স্রাব নির্গত হওয়াকেই শ্বেতপ্রদর বা (Leucorrhoea) লিউকোরিয়া বলা হয়ে থাকে। কিন্তু সব সময়ই এটিকে রোগের পর্যা...
ডাঃ ইমরান; ডিএইচএমএস(হোমিওপ্যাথি) এবং ডিএমএস(অ্যালোপ্যাথি), ঢাকা।
আনোয়ার টাওয়ার, আল-আমিন রোড, কোনাপাড়া, যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।
ফোন : ০১৬৭১-৭৬০৮৭৪ এবং ০১৯৭৭-৬০২০০৪

সকল আপডেট পেতে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন আমাদের সাথে।

No comments:

Post a Comment