রবিবার, ২৮ আগস্ট, ২০২২

ক্রনিক প্যানক্রিয়াটাইটিস ও এর ফলে সৃষ্ট সিউডোসিস্ট চিকিৎসা

প্যানক্রিয়াটাইটিস যে সকল জটিলতা সৃষ্টি করতে করে থাকে এর মধ্যে রয়েছে- Pancreatic Pseudocyst  সিউডোসিস্টের গঠন, সংক্রমণ, ডায়াবেটিস, কিডনি বিকল হওয়া, শ্বাসকষ্ট, অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সার ইত্যাদি। এই জটিলতাগুলি সম্পর্কে আপনারা পূর্বের আলোচনা থেকে বিস্তারিত জেনেছেন। যেমনঃ তীব্র প্যানক্রিয়াটাইটিস অগ্ন্যাশয়কে সংক্রমণ প্রবণ করে তুলতে পারে, দীর্ঘস্থায়ী প্যানক্রিয়াটাইটিস অগ্ন্যাশয়ের ইনসুলিন উৎপাদনকারী কোষগুলির ক্ষতি করে থাকে, যার ফলে ডায়াবেটিসের মতো সমস্যা জেগে উঠে।

তীব্র প্যানক্রিয়াটাইটিস এর ক্ষেত্রে অগ্ন্যাশয় ক্ষতিগ্রস্ত হলে উৎপন্ন তরল পদার্থ জমে জমে এই ধরনের সিস্ট তৈরি হয় যাকে সিউডোসিস্ট অর্থাৎ Pancreatic Pseudocyst বলা হয়ে থাকে যা পেটের ওপরের দিকে চাকার মতো অনুভূত হয়। আকারে ৬ সে.মি. এর চেয়ে ছোট হয় যা সাধারণত আপনা আপনি সেরে যায়। তবে যদি একটি বড় সিউডোসিস্ট ফেটে যায়, এটি সংক্রমণ এবং অভ্যন্তরীণ রক্তপাত ঘটাতে পারে।
Pancreatic pseudocysts are collections of leaked pancreatic fluids. They may form next to the pancreas during pancreatitis.
প্যানক্রিয়াস বা অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহজনিত কারণে এর সেলগুলো এর নিজস্ব এনজাইম দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অগ্ন্যাশয়ের গ্রন্থিযুক্ত অংশ থেকে প্রায় ২২ রকম এনজাইম নিঃসৃত হয়। স্বভাবিক অবস্থায় এই এনজাইমগুলো নিষ্ক্রিয় অবস্থায় অগ্ন্যাশয়ের কোষের মধ্যে থাকে এবং ক্ষুদ্রান্ত্রে না পৌঁছা পর্যন্ত সক্রিয় হয় না। এখন উপরোক্ত কারণগুলোর জন্য অগ্ন্যাশয়ের কোনো অংশ সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হলে অথবা এর নালিগুলোতে চাপবৃদ্ধির ফলে সক্রিয় অগ্ন্যাশয় রস কোষে কোষে ছড়িয়ে পড়লে ধ্বংসযজ্ঞ শুরু হয়ে যায়।
Pancreatic Pseudocyst
এনজাইমগুলোর মধ্যে 'ট্রিপসিন' নামক এনজাইমটি এক্ষেত্রে ভাইটাল রুল পালন করে থাকে। এই এনজাইমটি নিজে সক্রিয় হয়ে অন্য ধ্বংসাত্মক এনজাইমগুলোকেও সক্রিয় করে তোলে। শুধু তাই নয়, এই ট্রিপসিন রক্ত জমাট বাঁধতে সহায়তাকারী কিছু ফ্যাক্টর এবং এনজাইমগুলোকেও সক্রিয় করে তোলে। এর ফলে অগ্ন্যাশয়ের চার ধরনের পরিবর্তন ঘটে-
  • অগ্ন্যাশয়ের প্রোটিন জাতীয় পদার্থের ক্ষতি সাধন হয় 
  • রক্তনালিতে ক্ষত তৈরি হয়ে পরবর্তীতে রক্তপাত হয়
  • চর্বি জাতীয় পদার্থ ধ্বংস হয় 
  • প্রদাহজনিত পরিবর্তন হয় 
কোনটি বেশি হয় তা নির্ভর করে ক্ষতির ভয়াবহতা এবং কতক্ষণ ধরে তা ঘটেছে তার ওপর। শুধু অগ্ন্যাশয়ের চর্বি নয় এর আশপাশের উদর গহ্বরের চর্বিগুলোও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। যদি এরপরও রোগী বেঁচে থাকে তবে পরবর্তীতে ধীরে ধীরে ক্ষয়ক্ষতি কমতে থাকে এবং এ ধরনের সিউডোসিস্ট অর্থাৎ Pancreatic Pseudocyst তৈরি হতে পারে। ক্রনিক প্যানক্রিয়াটাইটিস এর ক্ষেত্রেই আমরা এরূপ দেখতে পাই। তাই এর সুচিকিৎসা প্রয়োজন। 

ক্রনিক প্যানক্রিয়াটাইটিস সারানোর কোন এলোপ্যাথিক চিকিৎসা নেই। হোমিওপ্যাথিতে এই রোগের বেশ উন্নত ম্যানেজমেন্ট রয়েছে। অভিজ্ঞ হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারের পরামর্শক্রমে প্রপার হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা নিলে প্যানক্রিয়াটাইটিস ধীরে ধীরে ভালো হতে থাকে যার ফলে এই ধরণের সিস্ট আর তৈরী হতে পারে না আর যেগুলি আগে থেকেই তৈরি হয়ে থাকে সেগুলিও মিলিয়ে যেতে থাকে।
পরিশেষে যে কথাটি বলবো, এই রকম বেদনাদায়ক জটিল ব্যাধিতে কেউ আক্রান্ত হোক এটা কারো কাম্য নয়। দুৰ্ভাগ্যবশতঃ যদি কেই প্যানক্রিয়াটাইটিস এবং এই সক্রান্ত জটিল পীড়ায় আক্রান্ত হয়ে পড়েন তাহলে কাল বিলম্ব না করে একজন অভিজ্ঞ এবং রেজিস্টার্ড হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারের পরামর্শ নিন আশা করি সুফল পাবেন। 
এই রোগের কোন এলোপ্যাথিক স্থায়ী চিকিৎসা নেই আগেই বলেছি তাই বাংলাদেশ ভারত কেন সুদূর ইউরুপ আমেরিকাতে গিয়ে এলোপ্যাথিক ডাক্তার দেখালেও কোন সুফল পাবেন না, কথাটি মনে রাখবেন তাতে আপনার অর্থ ও সময় দুটিই বাঁচবে। 

আর যারা সার্জারি নামক চিকিৎসা নিতে যান তারাও একটি ভুল করে থাকেন। কারণ, সার্জারি করে আপনি ক্রনিক প্যানক্রিয়াটাইটিস আদৌ সমাধান করতে পারবেন না। আর সিস্ট সার্জারি করে কেটে ফেলে দিলেও আবার হওয়ার ঝুঁকি থেকেই যায় যেহেতু প্যানক্রিয়াটাইটিস ঠিক করা হচ্ছে না। তাছাড়া সার্জারি বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। খবরে হয়তো দেখে থাকবেন প্যানক্রিয়াস বা অগ্নাশয়ের সিস্ট সার্জারি (তথ্যসূত্র: যমুনা টিভি এবং তথ্যসূত্র: আর টিভি) করতে গিয়ে মৃত্যুর দ্বার প্রান্তে চলে যেতে হয় অনেক রোগীকেই।
Dr. Delowar Jahan Imran
দেলোয়ার জাহান ইমরান
রেজিস্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক (রেজিঃ নং-৩৩৪৪২)
ডিএইচএমএস (বিএইচএমসি এন্ড হসপিটাল), ডিএমএস; ঢাকা
যোগাযোগঃ নিউটাউন হোমিও হল, মাহমুদ নগর মেইন রোড, সাইনবোর্ড, ডেমরা, ঢাকা
Phone: +88 01671-760874; 01977-602004 (শুধু এপয়েন্টমেন্টের জন্য)
About Me: Profile ➤ Facebook ➤ YouTube ➤